লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশন কী?

লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশন

লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশন

লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশন কী?

– লিভার শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও সর্ববৃহৎ অঙ্গ। শরীরকে সুস্থ রাখতে প্রয়োজন সুস্থ লিভার। লিভারকে বলা হয় শরীরের পাওয়ার হাউস, যা জীবন-ধারণের জন্য অপরিহার্য। লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশন অর্থ মানবদেহের অকার্যকর লিভার ফেলে নতুন লিভার প্রতিস্থাপন করা। কোনো ব্যক্তির রোগাক্রান্ত লিভার অপসারণ করে সেই স্থানে দাতা ব্যক্তির সম্পূর্ণ অথবা আংশিক সুস্থ লিভার প্রতিস্থাপন করাকে লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশন বলা হয়। একজন জীবিত সুস্থ ব্যক্তি লিভারের একটি অংশ তার কোনো নিকটাত্মীয়কে দান করতে পারেন

লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করলে যিনি ডোনার (দাতা) তার কি লিভারে সমস্যা হয়?

– এটা সৃষ্টির রহস্য যে ওই কাটা লিভারটা কিন্তু আবার দুই থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যে পূরণ হয়ে যায়। তার কোনো সমস্যা হয় না, ঘাটতি থাকছে না। আর যিনি গ্রহণ করলেন তিনি একটি অংশ নিলেন, ওই অংশটা দেড় থেকে দুই মাসের মধ্যে পূর্ণ হয়ে যাবে। একটি লিভার দুই ভাগ হয়ে দুজনের শরীরে পূর্ণাঙ্গ লিভারের কাজ করবে।

যেসব প্রধান কারণগুলির জন্য যকৃতের ব্যর্থতা এবং লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট হয়:

-হেপাটাইটিস বি এবং সি।
– অ্যালকোহলযুক্ত লিভার ডিজিজ, যা অতিরিক্ত অ্যালকোহল গ্রহণের কারণে যকৃতের ক্ষতি করে।
-অ্যালকোহলিক নয় এমব ফ্যাটি লিভার ডিজিজ, এমন একটি পরিস্থিতিতে যেখানে লিভারে ফ্যাট তৈরি হয়, প্রদাহ বা লিভারের কোষের ক্ষতি করে।
– জিনগত রোগগুলি লিভারকে প্রভাবিত করে হেমোক্রোমাটোসিস সহ যা লিভারে অতিরিক্ত আয়রন তৈরির কারণ এবং উইলসন রোগ যা লিভারে অতিরিক্ত তামার আবরণ তৈরির কারণ হয়।
-Hemochromatosis অর্থাৎ একটি বংশগত ব্যাধি যা আয়রনের লবণগুলি টিস্যুতে জমা হয়, যার ফলে লিভারের ক্ষতি হয়, ডায়াবেটিস মেলিটাস এবং ত্বকের ব্রোঞ্জের বর্ণহীনতা দেখা দেয়।
-পিত্ত নালীগুলিকে প্রভাবিত করে এমন রোগগুলি (যে টিউবগুলি পিত্তকে দূরে সরিয়ে নিয়ে যায়) যেমন প্রাথমিক বিলিরি সিরোসিস বা পিত্তথলীর শক্ত হওয়া, প্রাথমিক স্ক্লেরোসিং কোলেঞ্জাইটিস বা এবং পিত্তথলির অ্যাট্রেসিয়া বা পিত্তথলি শুরু হওয়া । শিশুদের মধ্যে লিভার অ্যাট্রেসিয়া হ’ল সর্বাধিক সাধারণ কারণের একটি।
লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট লিভারে উদ্ভূত কিছু নির্দিষ্ট ক্যান্সারেরও চিকিৎসা করতে পারে।

লিভার ট্রান্সপ্লান্ট কত প্রকারের হয়?

-সাধারণত দুটি ধরণের লিভার প্রতিস্থাপন ঘটে এবং সেগুলি হ’ল: –
মৃত দাতা ট্রান্সপ্ল্যান্ট:

– যখন রোগী মস্তিষ্কে মৃত হয়, তখন তাকে মৃত মনে করা হয় এবং তার লিভার প্রতিস্থাপনের জন্য প্রস্তুত।
– মৃত ব্যক্তির রক্তের গ্রুপ এবং আকারের সাথে মিলে যাওয়ার পরে, লিভারটি অভাবীদের মধ্যে প্রতিস্থাপন করা হয় যারা অপেক্ষার তালিকায় প্রথমে আসে।
– যেহেতু লিভারের পুনঃজন্মের ক্ষমতা রয়েছে, তাই, কখনও কখনও এটি দুটি অংশে বিভক্ত হয়ে একবারে দুটি রোগীর কাছে প্রতিস্থাপন করা হয় – একটি শিশু এবং একজন প্রাপ্তবয়স্ক।
একজন মৃত দাতা আটটি জীবন বাঁচানোর অঙ্গ এবং জীবন-বর্ধনকারী অসংখ্য টিস্যু দান করতে পারেন।

লিভিং ডোনার ট্রান্সপ্ল্যান্ট:

– যখন রোগাক্রান্ত লিভার প্রতিস্থাপনের জন্য জীবন্ত দাতা থেকে যকৃতের একটি লোব প্রতিস্থাপন করা হয়, তখন এটি জীবিত দাতা প্রতিস্থাপন।
– দাতার একজন তাৎক্ষণিক আত্মীয় যেমন পিতা-মাতা, ভাইবোন, শিশু, স্ত্রী, দাদা-দাদি হতে হবে।
– লিভারটি তার স্বাভাবিক আকারে পুনরায় উৎপন্ন / পুনরায় জন্মায় এবং লিভারটি বিভক্ত / প্রতিস্থাপনের সাথে সাথে এই প্রক্রিয়াটি শুরু হয়।
– পুরো লিভারের আকারটি পুনরায় আকার নিতে প্রায় ২-৩ মাস সময় লাগে।

লিভার প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে কেমন সফলতা পাওয়া যেতে পারে?

-সফলতার হার নির্ভর করে লিভার গ্রহণকারীর অসুস্থতা কতটা সিরিয়াস তার ওপর, সব মিলিয়ে সফলতার হার শতকরা ৮০ থেকে ৯২ ভাগ।

লিভার সংক্রান্ত যে কোন রোগের  চিকিৎসা পরামর্শ নিতে   কল করুন 01886655200

ভিজিট করুন https://www.doctorslinkbd.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *